নন অর্গানিক শুঁটকি বনাম অর্গানিক শুঁটকি

নন অর্গানিক শুঁটকি বনাম অর্গানিক শুঁটকি/ যে কারণে অর্গানিক শুঁটকির দাম বেশি

অর্গানিক শুঁটকির দাম শুনলেই অনেকের চোখ ছানাবড়া হয়ে যায়। অনেকেই আবার ভেবে কুল পায় না, শুঁটকির দাম কিভাবে এতো বেশি হতে পারে, যেখানে রাস্তাঘাট, ফুটপাত বা খোলাবাজারের শুঁটকির দাম এতো কম!

অনেকের ধারণা, শুঁটকি তো শুঁটকিই সেখানে দাম নিয়ে এতো বাড়াবাড়ির কি আছে!

শুঁটকি হলেই হলো, এই ভেবে অনেকেই কম দামে নন অর্গানিক শুঁটকি কিনে খায়। যা শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

চলুন জেনে নেওয়া যাক, যেকারণে অর্গানিক শুঁটকির দাম বেশি

১. ওজনের পার্থক্য: 

নন অর্গানিক শুঁটকি শুকাতে যে পরিমাণ শুঁটকি লাগে অর্গানিক শুঁটকি শুকাতে তার দ্বিগুণ পরিমাণ শুঁটকি লাগে। যেমন: এক কেজি নন অর্গানিক লইট্টা শুঁটকির জন্য তিন কেজি লইট্টা মাছ লাগে। অন্যদিকে এক কেজি অর্গানিক লইট্টা শুঁটকির জন্য ছয় কেজি লইট্টা মাছ লাগে।

২. জাহাজের মাছ বনাম বোটের মাছ: 

জাহাজের মাছ সাগরে থাকা অবস্থায় কয়েক মাস সংরক্ষণ করার জন্য মাছে অ্যামোনিয়া গ্যাস ব্যবহার করা হয় যার ফলে এসব মাছের শুঁটকি তেমন স্বাদের হয় না। অন্যদিকে বোটের টাটকা মাছ প্রতিদিন পাড়ে নিয়ে আসা হয় বলে এসব মাছে কোনো গ্যাস ব্যবহার হয় না। যার কারণে জাহাজের মাছের যে দাম তার তিনগুণ দাম হচ্ছে বোটের মাছ।

৩. শুকানোর পদ্ধতি: 

নন অর্গানিক শুঁটকি শুকানো হয় খোলা জায়গায় কড়া রোদে এবং এসব শুটকিতে ফরমালিন ও লবণের ব্যবহার হয়। অন্যদিকে অর্গানিক শুঁটকি শুকানো হয় ফিস ড্রায়ার ও জালে ঢাকা মাচায়।

যার কারণে এসব শুঁটকিতে মাছি বা পোকা বসার সুযোগ থাকে না বলে কেমিক্যাল ও লবণ মেশানোর প্রয়োজন হয় না। 

৪. শুটকির ধুলাবালি, নাড়িভুড়ি, মাথা ও পাখনা:

নন অর্গানিক শুঁটকির নাড়িভুড়ি পরিষ্কার করা হয় না, মাথা, পাখনা, লেজ কাঁটা হয় না এবং পরিষ্কার পানি দিয়ে ভালো ভাবে ধোয়া হয় না বলে এসব শুটকিতে ধুলাবালি লেগে থাকে।

অন্যদিকে অর্গানিক শুঁটকির নাড়িভুড়ি পরিষ্কার থাকে এবং মাথা, পাখনা লেজ কাঁটা থাকে। ডিপ টিউবওয়েল এর ব্যবস্থা থাকায় অর্গানিক শুঁটকি পরিষ্কার পানি দিয়ে ভালো ভাবে ধোয়া হয়।

৫. তাপমাত্রা ও আদ্রতা নিয়ন্ত্রন:

নন অর্গানিক শুঁটকি খোলা জায়গায় শুকানোর সময়  তাপমাত্রা ও আদ্রতা নিয়ন্ত্রন করা হয় না। অন্যদিকে মেকানিক্যাল ফিস ড্রায়ার দিয়ে নির্দিষ্ট তাপমাত্রা ও আর্দ্রতা নিয়ন্ত্রণ করে অর্গানিক শুঁটকি শুকানোর প্রক্রিয়া চলতে থাকে। এবং অর্গানিক শুঁটকি কখনোই অতিরিক্ত ভেজা হয় না। নন অর্গানিক শুঁটকি ওজনে ভারি হয় কিন্তু অর্গানিক শুটকি হয় ওজনে হালকা।

৬. সময় এবং শ্রমিক:

তিন জন শ্রমিকের তিন টন নন অর্গানিক শুঁটকি শুকাতে চার দিন সময় লাগে। অন্যদিকে তিন জন শ্রমিকের মাত্র পঞ্চাশ কেজি অর্গানিক শুঁটকি শুকাতে পাঁচ দিন সময় লাগে।

৭. কোয়ালিটি এবং সাইজ: 

নন অর্গানিক শুঁটকির কোয়ালিটি খুব একটা ভালো না হওয়ায় এই শুঁটকি রপ্তানি যোগ্য নয়। অন্যদিকে অর্গানিক শুঁটকি শতভাগ নিরাপদ এবং স্বাস্যসম্মত হওয়ায় এসব শুঁটকি দেশের বাইরে রপ্তানি যোগ্য।

ছোট, বড় এবং মাঝারি সাইজ অনুযায়ী এসব শুঁটকির দাম ও কম বেশি হয়।

৮. প্যাকেজিং: 

নন অর্গানিক শুঁটকি বিক্রি করা হয় খোলামেলা ভাবে। অন্যদিকে অর্গানিক শুঁটকি ভ্যাকুয়াম প্যাক দ্বারা আবৃত করা হয়।

উপরোক্ত আলোচনা থেকে বুঝা যায় যে সঠিক নিয়ম মেনে অর্গানিক শুঁটকি শুকাতে যে পরিমাণ অর্থ, শ্রম ও সময়ের প্রয়োজন হয় নন অর্গানিক শুঁটকি শুকাতে সেসব কোন নিয়ম মানা হয় না। তাছাড়া অর্গানিক শুটকির জন্য বোটের তাজা মাছ ব্যবহার করা হয় যার দাম জাহাজের মাছের দামের তিন গুন। 

শুঁটকিজের শুঁটকি কেটেকুটে অপ্রয়োজনীয় অংশ বাদ দিয়ে প্রথমে ভ্যাকুয়াম প্যাকে সংরক্ষণ করা হয়, তারপর আকর্ষণীয় মোটা কাগজের প্যাক দ্বারা আবৃত করা হয়।

আপনার ও আপনার পরিবার পরিজনের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় লবণ ও রাসায়নিকমুক্ত শতভাগ নিরাপদ ও প্রিমিয়াম কোয়ালিটি শুটকি পেতে কড়া নাড়ুন শুঁটকিজের পেইজ ও ওয়েবসাইটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *